বর্ষায় ত্বকের যত্ন

426

বর্ষা মৌসুমে আবহাওয়ায় তাপমাত্রা এবং জলীয় বাষ্প বেশি থাকে, এজন্য কয়েক ধরনের ত্বকের রোগের আধিক্য দেখা দিতে পারে। গরমে শরীরের ঘাম, বাতাসের জলীয় বাষ্প এবং সুর্যালোকের কারণে পরজীবী, ফাঙ্গাস, এবং ব্যাকটেরিয়াজনিত ত্বকের রোগের পাশাপাশি প্রদাহজনিত রোগ দেখা দিতে পারে এই মৌসুমে।

উচ্চ তাপমাত্রা এবং জলীয় বাষ্প ত্বকে ফাঙ্গাস বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। বগল, কুচকি, হাত-পায়ের আঙ্গুলের ফাঁকে, নখে বা শরীরের অন্য যেকোনো জায়গায় ফাঙ্গাস বৃদ্ধি পেয়ে রোগের সৃষ্টি করে। চুলকানি, লালচে চাকা ইত্যাদি এ রোগের লক্ষণ। দাদ এমনি একটি ত্বকের রোগ।



বর্ষা মৌসুমে ফাঙ্গাসের মতো ত্বকে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ দেখা দিতে পারে। শরীরের বিভিন্ন জায়গায় যেমন: চুলের গোড়ায় ফুসকুড়ি উঠে পুঁজ হতে পারে।



ত্বকে পরজীবী আক্রান্ত স্ক্যাবিস বা খোসপচড়া দেখা দিতে পারে। উচ্চ তাপমাত্রা, ঘাম এবং তৈলাক্ত ত্বকের কারণে একজিমা, সোরিয়াসিস, মেছতা, ঘামাচি এবং ব্রণ বেড়ে যেতে পারে।



প্রতিকার :
১. নিয়মিত গোসল, হাত, পা, মুখ পরিষ্কার এবং শুস্ক রাখতে হবে।
​২. আরামদায়ক এবং প্রাকৃতিক তন্তুর তৈরি পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন পোশাক পরিধান করতে হবে।
​৩. আন্ডার গার্মেন্টস একবার ব্যবহার করার পর না ধুয়ে পরিধান করা থেকে বিরত থাকতে হবে।
​৪. রোদ এবং বৃষ্টি এড়িয়ে চলতে ছাতা ব্যবহার করার বিকল্প নেই। ত্বকের ধরন অনুযায়ী চিকিৎসকের পরামর্শে সানস্ক্রিন বা সানব্লক ব্যবহার করা যেতে পারে।
​৫. কৃত্রিম জুয়েলারি ব্যবহার না করাই ভালো। এই মৌসুমে নাক-কান ফোড়ানো, শরীরে ট্যাটু আঁকা থেকে বিরত থাকুন।
​৬. ত্বকে যেকোনো ধরনের লক্ষণ অনুভূত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।